Fanbook.GQ

My Blog

Airtel Robi

রবি-এয়ারটেল একীভূত হওয়ার ১০ উপকারিতা

দুইটি মোবাইল অপারেটর এয়ারটেল-রবি একীভূত হওয়ায় অনেক উপকারিতা পাওয়া যাবে। এর কিছু অংশ পাবে কোম্পানি, কিছু সরকার ও রেগুলেটর বডি এবং বাকিটা পাবে সাধারণ ব্যবহারকারি।

একীভূত হওয়ার আগে সংবাদ সম্মেলনে রবি ১০টি উপকারের বিবরণ দেয়েছিল।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তির শুরুতে জানানো হয়, আজিয়াটা গ্রুপ বারহাদ (আজিয়াটা) এবং ভারতী এয়ারটেল লিমিটেড (ভারতী) বাংলাদেশে রবি আজিয়াটা লিমিটেড (রবি) এবং এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেডের (এয়ারটেল কার্যক্রম একীভূত করতে আনুষ্ঠানিক চুক্তিতে উপনীত হয়েছে।

২০১৫ সালের ৯ সেপ্টেম্বর দুই কোম্পানির তরফ থেকে বাংলাদেশে ব্যবসায়িক কার্যক্রম একীভূত করার সম্ভাবনার বিষয়ে একান্ত আলোচনা শুরুর ঘোষণা দেওয়ার পর এই চুক্তি হল। একীভূতকরণের পর, দুই কোম্পানির একীভূত সত্তা রবি নামেই ব্যবসা পরিচালনা করছে এবং একীভূত সত্তার গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছিল প্রায় ৪ কোটিতে।

রবি এবং এয়ারটেলের যৌথ সক্ষমতাকে
কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশের সবচেয়ে বিস্তৃত
মোবাইল নেটওয়ার্কের অধিকারী হয়েছে এই
একীভূত সত্তা।

এর ফলে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর কাছে সাশ্রয়ী মুল্যে টেলিযোগাযোগ এবং উচ্চ গতির মোবাইল ইন্টারনেট সেবা দ্রুততার সাথে পৌঁছে দেয়া সম্ভব হবে এবং তা ডিজিটাল বাংলাদেশ
বাস্তবায়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বলে মনে
করছে রবি।

চুক্তি সম্পাদনের ফলে শেয়ার মূলধনের পুনর্বিন্যাস হয়েছে এবং এতে আজিয়াটা একীভূত সত্তার ৬৮.৩% নিয়ন্ত্রণ করবে। অন্যদিকে ভারতী ২৫ শতাংশ এবং বাকি ৬.৭% বর্তমানের অপর শেয়ারহোল্ডার জাপানের এনটিটি ডকোমোর কাছে আছে। রবি-এয়ারটেল একীভূতকরণের যৌক্তিকতা, লেনদেন সমন্বিতকরণ এবং ১০ উপকারিতাঃ

1. এই একীভূতকরণ প্রতিযোগিতার পরিবেশ
জোরদার করার মাধ্যমে গ্রাহকের জন্যে
আরো উন্নততর অভিজ্ঞতা এবং অধিকতর
পছন্দের সুযোগ নিয়ে আসবে।

2. একীভূতকরণের মাধ্যমে ৪ কোটি গ্রাহকের জন্যে তুলনামূলক বিচারে সবচেয়ে বিস্তৃত নেটওয়ার্ক কাভারেজ এবং উন্নততর মোবাইল ইন্টারনেট সেবার
অভিজ্ঞতা নিশ্চিত হবে।

3. সবচেয়ে বিস্তৃত বিক্রয় ও বিপণন চ্যানেলের
মাধ্যমে এবং দেশজুড়ে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক গ্রাহক সেবা কেন্দ্রের সহযোগিতায় বিক্রয় ও বিপণন সেবা আরো বিস্তৃত এলাকায় পৌঁছে দেওয়া যাবে।

4. ৪ কোটি গ্রাহকের বিশাল সংখ্যার শক্তির ওপর
ভর করে গ্রাহককে নিজ নেটওয়ার্কে (অন-
নেট) কম মূল্যে কল করার সুযোগ প্রদান
করা যাবে।

5. সারা বাংলাদেশ জুড়ে ইন্টারনেট সংযোগের
প্রাপ্যতা নিশ্চিত করা এবং দুই কোম্পানির
কার্যক্রম একীভূতকরণের মাধ্যমে ব্যয়
সংকোচনের ফলে আরো সুলভে মোবাইল সেবা পৌঁছে দেয়া সম্ভব হবে।

6. এই একীভূতকরণ সরকারের ডিজিটাল বাংলা
বাস্তবায়নে সহযোগিতা এবং বাংলাদেশে সরাসরি
বিদেশী বিনিয়োগ (এফডিআই) আকর্ষণ করবে।

7. প্রস্তাবিত একীভূতকরণ বাংলাদেশ টেলিকম
শিল্পখাত এবং এর বাজার কাঠামোকে দীর্ঘমেয়াদে টিকে থাকতে সাহায্য করবে। মোবাইল ব্রডব্যান্ড সারা দেশে আরো দ্রুত গতিতে পৌঁছে দেয়া নিশ্চিত করবে। দেশের সার্বিক অথর্নীতি এবং জাতীয় রাজস্বে এই
একীভূতকরণ উল্লেযোগ্য অবদান রাখবে।

8. আশা করা যাচ্ছে যে, উন্নততর মোবাইল ডাটা
ও ব্রডব্যান্ড সেবা অর্থনীতির উৎপাদনশীলতা বহুগুণ বৃদ্ধি করবে, স্থানীয় মোবাইল ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সহযোগী সেবার মান বাড়াবে এবং অন্যান্য খাতেও নতুন নতুন সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ (এফডিআই)
আকর্ষণ করবে।

9. একীভূতকরণের মাধ্যমে ব্যবসা কাঠামো
উন্নততর হলে ব্যবসায়িক লাভ এবং শেয়ার
হোল্ডারদের বিনিয়োগ সুরক্ষিত হবে।

10. রবি এবং এয়ারটেলের প্রস্তাবিত একীভূতকরণ
এর পরিচালন ব্যয় কমিয়ে আনবে। এর ফলে
একদিকে যেমন শেয়ারহোল্ডারদের মুনাফা
বৃদ্ধি পাবে যা সারাদেশে টেলিযোগাযোগ সেবা বিস্তৃত করতে প্রয়োজনীয় বিনিয়োগে তাদের সক্ষমতা বাড়াবে অন্যদিকে গ্রাহক পর্যায়ে সেবা আরো
সহজলভ্য হবে।

LEAVE A RESPONSE

Your email address will not be published. Required fields are marked *